মুন্সীগঞ্জে আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের পরে পুরুষ শূণ্য পুরো গ্রাম

Www.munshiganjcrime.com
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মুন্সীগঞ্জ সংবাদদাতা
আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে ২০-৩০ টি বাড়িঘর ভাংচুর। সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধসহ আহত হয়েছে ৫জন। আহতদের মধ্যে রবিউল (১৮) পিতা বাচ্চু মুন্সী, প্রতিবন্ধি আসাদ (৩০) পিতা আনছু হালদার। অপর তিনজনের নাম পাওয়া যায়নি। আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের পরে পুরুষ শূণ্য পুরো গ্রাম।

মামুন বাহিনীর দাবী রবিউল ও প্রতিবন্ধী আসাদের উপর হামলা করেছে আহাম্মদ গং বাহিনী। শনিবার (১৬ জুলাই) ভোর সাড়ে ৪টার সময় এই হামলার ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা মহিলা জানান, রবিউল বালতি ভরে ককটেল নিয়ে আসতেছিল। তখনই আহাম্মদ গ্রুপের লোকজন রবিউলের উপর হামলা চালায়।

নাসির বেপারীর স্ত্রী নাজমা জানান, বাড়ি ঘরে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় ঘটায় দুলাল মোল্লার পুত্র ইমরান (১৮), সাত্তার হালদারের পুত্র মোস্তাক (৩০), সেলিম (৪৫), আলমাস সরদারের পুত্র ফরিদ (৪০), জসিম হালদারের পুত্র তপু (১৬), জামাল হালদারের পুত্র সাকিব (১৭), বোবা হালদারের পুত্র তাজির ইসলাম (৩০) সহ অর্ধ শতাধিক ককটেল ও অস্ত্র নিয়ে বাড়ি ঘরে হামলা চালিয়ে ৩০টিরও বেশী ঘর ভাংচুরে করে।

রবিউলের উপর হামলার পর পরই উভয় পক্ষই বাড়িঘর ভাংচুরে মেতে উঠে। মামুন গ্রুপের সন্ত্রাসী বাহিনীরা বিভিন্ন ধারালো অস্ত্র নিয়ে ৩০টি বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে। এদের মধ্যে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে জহির উদ্দিন হালদারের বাড়ি, মজনু হালদার, নাসির হালদার, সোবহান হালাদার, আজহার মোল্লা, রমজান মোল্লা বাড়ি। এছাড়াও আলমগীর হালদার, প্রবাসী মিজানুর রহমান হালদার, মজিবুর বেপারী, রমজান বেপারী, মোস্তফা বেপারী, মরণ বেপারী, বজলু মাস্টার, মজিবুর হালদার, সালাউদ্দিন হালদারের বাড়ি ঘরও ভাংচুর করে তছনছ করে ফেলে মামুন গ্রুপের সন্ত্রাসীরা এমনই অভিযোগ করেছে স্থানীয়রা।

অপরদিকে মামুন বাড়িতে না থাকলেও বাড়ির বাগানে বিকাল সাড়ে ৪টার সময় দেখা যায় কিশোর গ্যাংসহ হামলাকারীরা বাগানে অবস্থান নিয়ে আছে। মামুনের বিল্ডিংয়ের উপর হামলা হয়েছে। ঘরের ভিতর ককটেল বিষ্ফোরণ না ঘটলেও বাথরুমে ককটেল বিষ্ফোরণ ঘটেছে।

মামুন গং জানান, চরকেওয়ার ইউনিয়ন খাসকান্দি অপর গ্রুপ আহাম্মদ গং এর নেতৃত্বে, চরডুমুরিয়া, খাসকান্দি, এবং ছোট মোল্লাকান্দি গ্রামের হামলা চালিয়েছে। মামুন গ্রুপের দাবী অস্ত্রসজ্জায় সজ্জিত হয়ে বুলেট প্রুফ জ্যাকেট গায়ে ৪০ থেকে ৫০জন হেলমেট বাহিনী একত্রিত হয়ে পুর্ব পরিকল্পিত ভাবে খাসকান্দি গ্রামের মামুন সাহেব এর কর্মীদের উপর ঘুমের ঘরে অতর্কিত ভাবে হামলা চালায়।

এই ঘটনায় খাসকান্দি গ্রাম রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। মুহুর্মুহু ককটেল আর গুলি বর্ষণ থেকে নিজের জান বাচানোর জন্য কেউবা পানিতে কেউবা ঘরে আত্মগোপন করলেও ঈদের ছুটিতে বাড়ি আসা অনেকেই এই ঘটনায় জড়িয়ে পড়ে।

অপরদিকে মামুন গ্রুপের দাবী সাইফুল, দিদার, রণি, সাণী, হৃদয় সহ ১০থেকে ১৫জন ঘর থেকে বাহির করে রবিউলের উপর গুলি বর্ষণ আর ককটেল নিক্ষেপ আর রামদা দিয়ে এলো পাথারি যখম করে।

এই ঘটনার পরে এলাকা পুরুষ শূণ্য হয়ে পড়েছে। তাৎক্ষনিক ভাবে রবিউল ও প্রতিবন্ধী আসাদ সহ আরও ৩জনকে মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে প্রেরন করা হয়। বর্তমানে তাহারা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এই ঘটনার সাথে ইউসুফ ফকিরও জড়িত রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

এ বিষয়ে সদর অফিসার ইনচার্জ মো: তারিকুজ্জামান জানান, ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি। দ্রুত উভয় গ্রুপের বিরুদ্ধেই আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Share

Www.munshiganjcrime.com
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •